logo

FX.co ★ কমোডিটি ফিউচার: একটি পরিবর্তিত দৃষ্টিভঙ্গি

কমোডিটি ফিউচার: একটি পরিবর্তিত দৃষ্টিভঙ্গি

বিশ্বের নেতৃস্থানীয় অর্থনীতিবিদদের সাধারণভাবে গৃহীত দৃষ্টিভঙ্গি হলো যে মুদ্রাস্ফীতির সময়, পণ্যের বাজার বৃদ্ধি পাবে এবং এটি বুলসদের প্রথাগত ট্রেডিংয়ের সুযোগ। তবে কিছু বিশ্লেষক এ খাতে মূল্য হ্রাসের পূর্বাভাস দিয়েছেন। আসুন বিষয়টি বুঝে নেয়া যাক।

কমোডিটি ফিউচার: একটি পরিবর্তিত দৃষ্টিভঙ্গি

আপনি জানেন, শেয়ারগুলো সস্তা হচ্ছে এবং দীর্ঘমেয়াদী বিয়ার মার্কেটের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিচ্ছে৷ বন্ডের মূল্যও ব্যাপকভাবে হ্রাস পেয়েছে। মার্কিন ডলারের বিপরীতে বৈদেশিক মুদ্রা ব্যাপকভাবে কমেছে। কারিগরি স্টক মার্কেটের পরিপ্রেক্ষিতে ক্রিপ্টোকারেন্সি, স্প্যাকস (SPAC) এবং অন্যান্য ট্রেডিং বিপর্যস্ত হয়েছে। কিন্তু পণ্য...

আরো দেখুন: You can open a trading account here
কমোডিটি ফিউচার: একটি পরিবর্তিত দৃষ্টিভঙ্গি

ব্লুমবার্গ কমোডিটি স্পট সূচক এই বছর ৩৩% বেড়েছে, পাশাপাশি জ্বালানি, ধাতু এবং কৃষি পণ্য এই বছর সর্বোচ্চ লাভ করেছে৷

সাধারণত, আমরা ক্রমবর্ধমান মূল্যের সময়ে বাজারে আচরণের একটি স্বাভাবিক প্যাটার্ন লক্ষ্য করছি: বিনিয়োগকারীরা, দ্রুত-বর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, ক্রমবর্ধমান ভূ-রাজনৈতিক ঝুঁকি এবং পোর্টফোলিও লোকসানের কারণে আতংকিত হয়ে, তাদের পোর্টফোলিও সূরক্ষার জন্য পণ্য ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করার চেষ্টা করছে।

মর্নিংস্টারের তথ্যানুসারে, কমোডিটি ইটিএফগুলো (ETFs) এই বছর এপ্রিল পর্যন্ত ২১.৪ বিলিয়ন ডলার অর্জন করেছে। ২০২১ সালের প্রথম চার মাসের সাথে তুলনা করুন, যেখানে ৬৩ বিলিয়ন ডলারের বহিঃপ্রবাহ দেখা গিয়েছিল।

যাইহোক, বর্তমানে কিছু বিশ্লেষক একটি মানসম্মত পরিস্থিতির সম্ভাবনা পুনর্বিবেচনা করছেন যা পণ্যসমূহে বিনিয়োগকারীদের সর্বাধিক সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দেবে।

লিভারেজ এবং ভেনচার ক্যাপিটাল বিশেষজ্ঞ, হ্যারি শিলিং বিশ্বাস করেন যে পণ্য বাজারে বুলসরা শীঘ্রই তাদের অতি-উৎসাহের জন্য অনুশোচনা করতে পারে, কারণ সরবরাহ এবং চাহিদার শক্তিগুলো শীঘ্রই ঘুরে দাঁড়াতে পারে।

বর্তমান পরিস্থিতি

আপনি বর্তমান বাজারের সাধারণ পরিস্থিতি জানেন: কোভিড-১৯ সংক্রমণের কারণে চীনে লকডাউন চলমান রয়েছে, যার ফলে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতিতে উৎপাদনে তীব্র পতন ঘটেছে, যা বিশ্বব্যাপী মোট দেশীয় পণ্যের ১৮.১% এবং উৎপতপাদনের ২৩.৯% জন্য দায়ী। ব্রাজিল, চিলি এবং অস্ট্রেলিয়া - তেল, তামা এবং লৌহ আকরিক - সেইসাথে জার্মানি, দক্ষিণ কোরিয়া এবং তাইওয়ানের মতো উৎপাদনকারী রপ্তানিকারক দেশগুলো থেকে চীনের পণ্য আমদানিতেও এই ক্ষতি প্রসারিত হয়েছে। গবেষণা কেন্দ্র নোমুরা হোল্ডিংস –এর মতে, বার্ষিক হারে চীনের লোহা আমদানি ইতিমধ্যেই এপ্রিল মাসে গত বছরের তুলনায় ১৩%, তামা ৪% এবং যানবাহন এবং চেসিস আমদানি ৮% হ্রাস পেয়েছে।

মহাদেশের অন্য অংশে, একটি সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয় শক্তি বৃদ্ধি করছে।

ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন বিশ্বব্যাপী চাহিদাকেও ব্যাহত করেছে, এবং শক্তিশালী ডলার উন্নয়নশীল দেশগুলোর পণ্য ক্রয়কে আঘাত করেছে, কারণ তাদের মুদ্রা ডলারের বিপরীতে এপ্রিল থেকে কমছে (এই বছরের এপ্রিলে গড়ে ৩% কমেছে)।

বিশ্বজুড়ে ব্যবসা করা ৪৫টি প্রধান পণ্যের মধ্যে ৪২টির অর্থপরিশোধ মাধ্যম হলো ডলার। একমাত্র ব্যতিক্রম হল উল (অস্ট্রেলিয়ান ডলার), অ্যাম্বার (রাশিয়ান রুবল) এবং পাম তেল (মালয়েশিয়ান রিংগিত), কিন্তু অ্যাম্বার পণ্য বাজারের খবই ক্ষুদ্র অংশ দখল করে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে, উন্নয়নশীল দেশগুলিতে পণ্য আমদানি যথেষ্ট গুরুতর হারে হ্রাস পাচ্ছে কারণ তাদের ক্রমবর্ধমান প্রয়োজনের জন্য বৈদেশিক মুদ্রা ব্যবহার করার জন্য ডলার-নির্ধারিত ঋণের পরিষেবা নিতে হচ্ছে।

একদিকে ডলারের রিজার্ভ কমে যাচ্ছে অন্যদিকে ঋণ বেড়ে যাওয়ায় পরিস্থিতি জটিল আরও জটিল হচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ, ২০১৮ থেকে ২০২১ পর্যন্ত, চিলির নন-ব্যাংক ডলার ঋণ মোট জিডিপি (GDP) -এর ৩৪.৭% থেকে ৫০.৩%, মেক্সিকো ২১.৯% থেকে ৩০.১% এবং তুরস্ক ২৩.০% থেকে ২৮.২%-এ বৃদ্ধি পেয়েছে।

সুতরাং, ইতোমধ্যেই দেখা যাচ্ছে যে পণ্যগুলিও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে এবং সাধারণভাবে স্বীকৃত অর্থনৈতিক তত্ত্ব অনুসারে, সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, পণ্যের চেয়ে পরিষেবার পক্ষে কাজ করছে।

ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণ থেকে এটি স্পষ্টভাবে বোঝা যেতে পারে।

অর্থনৈতিক তত্ত্ব এবং মূল্যের তারতম্য

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর, পণ্যের উপর আমেরিকানদের ব্যয় গৃহস্থালীর মোট ব্যয়ের ৬১% থেকে ৩৫% এ নেমে আসে, যেখানে পরিষেবাখাতে ব্যয় ৩৮% থেকে বেড়ে ৬৫% হয়। বিষয়টি চীনের মতো দ্রুত উন্নয়নশীল দেশের ক্ষেত্রেও সত্য।

সরবরাহের দিক থেকে, আদর্শ তত্ত্ব হল যে মুদ্রাস্ফীতির সময়কাল পণ্যের মূল্যকে উচ্চতর করে।

কিন্তু প্রকৃতপক্ষে, স্বর্ণের ক্ষেত্রে, ১৯৭০-এর দশকের যুদ্ধ এবং তেল নিষেধাজ্ঞার সময় একটি সংক্ষিপ্ত বৃদ্ধি বাদে, ১৮০০-এর দশকের মাঝামাঝি থেকে মুদ্রাস্ফীতি-সামঞ্জস্য মূল্য ক্রমাগতভাবে কমেছে, মোট ৮৩%।

এর পেছনে কারণ হলো বিভিন্ন অঞ্চলে শিল্পের বিকাশ, চাহিদা পূরণ, প্রতিযোগিতা এবং শ্রমের রোবটাইজেশন। শিল্প বিপ্লবের শুরু থেকে গত দুই শতাব্দী ধরে প্রতিস্থাপন এবং উৎপাদনশীলতার উন্নতি সব সময়ই ঘাটতির হুমকিকে পরাজিত করেছে।

যেমন আপনি জানেন, সত্য সর্বদা বিস্তারিত হয়ে থাকে, তাই আমাদের অবশ্যই বিবেচনায় নিতে হবে যে কৃষি ও শিল্পজাত পণ্যের দাম প্রায়শই একসাথে ওঠা-নামা করে, যেমন গমের চাহিদা কমে যাওয়ায়, ট্রাক্টরের যন্ত্রাংশের চাহিদা হ্রাস পায়।

অন্যদিকে, উচ্চ-মূল্য হলো ফসলের পাশাপাশি অন্যান্য পণ্যের জন্য সর্বোত্তম সার: সেই একই গমের উচ্চ মূল্য কৃষকদের যতটা সম্ভব আবাদি জমিতে গম রোপণের মাধ্যমে তাদের গম চাষকে প্রসারিত করতে উৎসাহিত করে।

কিন্তু এই বাম্পার ফলনের পরেই অনিবার্যভাবে মূল্য কমে যায়।

একইভাবে, শুকরের মাংসের উচ্চ-মূল্য শুকর প্রজননকে উৎসাহিত করে, বিশেষ করে যদি ভুট্টার দাম কম হয়। তারপরে অতিরিক্ত সরবরাহ শুকরের মাংসের চপের দাম কমিয়ে দেয়। এমনকি কম মূল্যও সরবরাহকে উদ্দীপিত করতে পারে। যেমন চিনির কম মূল্য ব্রাজিলের কৃষকদের সামগ্রিক আয়ের জন্য আরও বেশি আখ রোপণ এবং ফসল উৎপাদনে প্ররোচিত করছে।

কিন্তু এছাড়াও অনেক অতিরিক্ত কারণ রয়েছে যা ট্রেডারদের প্রাথমিক হিসাবকে ভুল প্রমাণিত করতে পারে। যেমন খারাপ আবহাওয়া ফসলের উচ্চ ফলনের সম্ভাবনা হ্রাস করতে পারে।

কার্টেল এবং অ্যাসোসিয়েশনগুলোও হিসেব এলোমেলো হওয়াতে অবদান রাখতে পারে। ২০২১ সালের গ্রীষ্মকাল এবং OPEC+-এর উৎপাদন বাড়াতে অস্বীকার করার কথা সকলেরই মনে আছে নিশ্চয়।

উপরন্তু, মার্কিন তেল কোম্পানিগুলি অতিরিক্ত ড্রিলিং করার মাধ্যমে তেলের উচ্চ মূল্যের বিরোধিতা করছে। অন্যদিকে, শেয়ারহোল্ডাররা এবং তাদের নিজস্ব ক্ষতিপূরণমূলক প্রণোদনা মুনাফা বাড়াতে উৎপাদন কমাতে উৎসাহিত করছে। ঋণ পরিশোধ করতে, লভ্যাংশ দিতে এবং তাদের শেয়ার ক্রয়ের জন্য খরচ কমিয়ে অর্থ সঞ্চয় করতে কোম্পানিগুলিকে অর্থ প্রদান করা হয়। এই সমস্ত কারণ তেলের মুল্য, সেইসাথে অন্যান্য পণ্যের ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন করে তোলে।

কিন্তু স্টক ট্রেডিংয়ে একটি অতিরিক্ত ফ্যাক্টর রয়েছে: ট্রেডাররা একই সময়ে একই পণ্যের লেনদেনের একই দিকে থাকে। উদাহরণ স্বরূপ, জিংক পজিশনে বড় ক্ষতির শিকার একজন ট্রেডার অন্যদের মতো মূলধন বাঁচাতে গমের শেয়ার বিক্রি করতে বাধ্য হয়।

কমোডিটি রোলব্যাক এমন কোনো অসম্ভব ঘটনা নয়

হ্যারি নিজেই উল্লেখ করেছেন যে তিনি নিজে তামার ফিউচারে শর্ট পজিশন পছন্দ করেন, যা ইতিমধ্যে মার্চের প্রথম দিকের শীর্ষ অবস্থানের তুলনায় ১৪% কমে গেছে, যদিও এটি একটি বরং ঝুঁকিপূর্ণ উপকরণ।

গাড়ি, যন্ত্রপাতি এবং কম্পিউটার থেকে প্রায় প্রতিটি শিল্প-পণ্যেই তামা ব্যবহার করা হয়, তাই এটি আসন্ন বিশ্ব মন্দার একটি দুর্দান্ত সূচক হতে পারে।

গুরুত্বপূর্ণ কথা হলো, সরবরাহ বা চাহিদা উভয় দিকেই তামার বর্তমানে কোনো কার্টেল নেই যা মৌলিক অর্থনৈতিক শক্তিকে ব্যাহত করতে পারে এবং অপ্রত্যাশিত অবস্থানগত সিদ্ধান্তের সাথে ট্রেডারদের পূর্বাভাস বাতিল করতে পারে।

ফলস্বরূপ, বেশ কয়েকটি ব্যর্থ বছর পরে, তামার উচ্চ মুল্য এবং নির্ভরযোগ্য চাহিদার পূর্বাভাস, যথারীতি, নতুন খনি এবং প্রক্রিয়াকরণ কারখানা চালু করার জন্য ব্যবসায়ীদের উৎসাহিত করেছে।

আন্তর্জাতিক কপার গবেষণা গ্রুপ আশা করে যে ২০২১ সালে ৪৭৫,০০০ মেট্রিক টন ঘাটতির পর এই বছর তামার বাজারে ৩২৮,০০০ মেট্রিক টন বিশাল উদ্বৃত্ত থাকবে, যার মানে তামার মূল্য কমতে থাকবে।

হ্যাঁ, তামার বুলস আগামী বছরগুলিতে ইভি ব্যাটারি এবং অন্যান্য বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতিগুলির চাহিদা বৃদ্ধির পূর্বাভাস দিচ্ছে৷ কিন্তু এটি মুদ্রার একটি দিক মাত্র।

কিন্তু মন্দার সময় বৈদ্যুতিক গাড়ির চাহিদা থাকবে কি? অবশ্যই, ক্রমবর্ধমান গাড়ির দাম শুধুমাত্র জার্মানিকে নার্ভাস করে তুলবে না, প্রস্তুতকারকদের উৎপাদনের পরিমাণ কমাতে বাধ্য করবে, এবং একই সাথে তামার সরবরাহের জন্য চুক্তিও কমবে।

এবং যদিও তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিতে দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা, সেইসাথে ইউক্রেনের শস্যের আওতাধীন এলাকা বাড়ানোর অক্ষমতার কারণে (বেশ কয়েকটি অঞ্চলের ক্ষতি বিবেচনা করে) গমের চাহিদা বেশি থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

যাইহোক, তেল এবং গ্যাস এতটা দুষ্প্রাপ্য নাও হতে পারে - একদিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে উৎপাদকদের সীমিত চাহিদা এবং রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে সংঘাতের সম্ভাব্য সমাপ্তির মধ্যে (অথবা একটি দীর্ঘস্থায়ী অবস্থানগত দ্বন্দ্বে রূপান্তর, যা দামও সমান করবে এবং ঘাটতি পূরণের দায়িত্ব নেবে)।

দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার কথা বললে, প্রযুক্তি বিকাশের শক্তিকে কখনই অবমূল্যায়ন করবেন না। এই কিছুদিন আগেও, আমরা সবাই ভেবেছিলাম যে প্রয়োজনীয় তার তৈরির জন্য পৃথিবীতে পর্যাপ্ত তামা না থাকার কারণে বিদ্যুৎ বিতরণের বৃদ্ধি সীমিত ছিল। এবং তারপরে ফাইবার অপটিক্স এলো যা সিলিকন থেকে তৈরি এবং সিলিকন বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক খনিজ পদার্থ, এবং সমস্যাটি দ্রুত সমাধান হয়ে গেল। মানুষের বুদ্ধিমত্তার উপর বাজি ধরুন তাহলে আপনি বাজার থেকে এগিয়ে থাকবেন, পিছিয়ে নয়।

* এখানে পোস্ট করা মার্কেট বিশ্লেষণ মানে আপনার সচেতনতা বৃদ্ধি করা, কিন্তু একটি ট্রেড করার নির্দেশনা প্রদান করা নয়
Go to the articles list Go to this author's articles Open trading account